• গেমস ওয়ার্ল্ড [পর্ব-০৩] :: Infamous : Second Son (মার্চ ২০১৪/ওপেন ওয়ার্ল্ড/অ্যাকশন অ্যাডভেঞ্চার)

    কেমন আছেন সবাই ? নিশ্চয় ভালো !! । কারন ইদানিং এতো ভালো গ্রাফিক্সের এবং উন্নতমানের গেমস বের হচ্ছে যে , আমার নিজের চোখও ধাঁধিয়ে যাচ্ছে । তার সাথে গেমসের স্টোরিলাইনের কাঠামো যদি শক্ত হয় সেই গেমস তো হিট হবেই ।
    আমি যখন একদম ছোট ছিলাম তখন লেটেস্ট আর হিট গেমস বলতে ছিলো রোডরাশ , প্রিন্স অফ পার্সিয়া টু , নীড ফর স্পীড ইত্যাদি গেমস । এসব গেমসের সাথে বর্তমান গেমসের গ্রাফিক্সের পার্থক্য অনেক । বর্তমানে গেমসের গ্রাফিক্সের এতো উন্নয়ন ঘটছে যে , কয়েক বছর পর গেমসের গ্রাফিক্স কি রকম হবে তা নিয়েই আমাদের মধ্যে গভীর আকর্ষণের সৃষ্টি হয়েছে ।
    আগের মতো আজকের টিউনেও থাকছে একটি গেমসের প্রিভিউ । শিরোনাম দেখে হয়তো এতক্ষণে বুঝে গেছেন কোন গেমসটি কথা বলছি । হ্যাঁ , আমি ইনফেমাস গেমস সিরিজের নতুন গেমস ইনফেমাস : সেকেন্ড সন গেমসটির কথা বলছি ।
    প্রথমেই ঐতিহ্যবাহী বর্ণনায় চলে আসি ।

    ইনফেমাস : সেকেন্ড সন হচ্ছে নতুন ধরনের ওপেন ওয়ার্ল্ড এবং অ্যাকশন অ্যাডভেঞ্চার গেমস । গেমসটি নির্মাণের জন্য কাজ করছে সাকার পাঞ্চ প্রোডাকশন এবং গেমসটি প্রকাশের দায়িত্ব পালন করবে সনি কম্পিউটার এন্টারটেইনমেন্ট । গেমসটি এই বছরের ২১ মার্চে শুধুমাত্র প্লেস্টেশন ফোরের জন্য বের হবে । তাই গেমসটি খেলার জন্য প্লেস্টেশনের নতুন গেমিং কনসোল প্লেস্টেশন ফোরের প্রয়োজন ।

    গেমপ্লে এবং ঘটনা

    এখন গেমসটির মূল চরিত্রের বর্ণনায় আসি । গেমসটি মূল চরিত্রের ভূমিকায় আছে ' ডালসিন রো ' নামক একজন ২৪ বছর বয়সী যুবক । ডালসিন কিছু অদ্ভুত শক্তির অধিকারী ।
    ডালসিন প্রথমে তার সেই অদ্ভুত শক্তি সম্পর্কে জানতো না । সে হঠাৎ বুঝতে পারে সে ধোঁয়া জাতীয় এক ধরনের জিনিস তৈরি করতে পারে । এছাড়াও তার হাতের মধ্যে চেইন জাতীয় একটি জিনিস জড়ানো থাকতে দেখা যাবে । যেটা তার প্রধান অস্ত্র । আর তার মাধ্যমেই সে তার অর্জিত শক্তি গুলোর মিশ্রণ ঘটিয়ে নতুন শক্তির আবিষ্কার করতে পারবে । ফলে গেমারকে হারানো শত্রুর পক্ষে অনেক কঠিন হয়ে পড়বে ।
    আমার মতে , গেমসটি খেলে গেমার পরিপূর্ণ মজা পাবে । কারন গেমসের গ্রাফিক্স অত্যন্ত উন্নতমানের । শুধু তাই নয় নিখুঁত এবং ঝকঝকে । ফলে ২০১৪ সালের সেরা গেমস গুলোর সাথে দারুনভাবে পাল্লা দিবে গেমসটি ।
    সবচেয়ে মজার ব্যাপার হলো ডালসিন আকাশে উড়ে এবং তার পাওয়ার গুলোর প্রয়োগ ঘটিয়ে কয়েক সেকেন্ডে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় চলে যেতে পারে । তবে ডালসিনের অফুরন্ত শক্তি নেই । তাই গেমারকে শক্তির পাশাপাশি তার বুদ্ধির প্রয়োগ করতে হবে ।
    এছাড়াও গেমসটিতে থাকছে নতুন অ্যাইমিং সিস্টেম , আকাশে উড়া , পাওয়ারে ব্যবহার , দেয়াল বেয়ে উঠা , এক লেডজ থেকে অন্য লেডজে লাফালাফি , বিশেষ অবস্থায় শত্রুর উপর পাওয়ার বা শক্তির প্রয়োগ সহ আরো অনেক কিছু ।
    আর গেমপ্লের মূল আকর্ষণ হলো নিয়ন পাওয়ার । নিয়ন পাওয়ার ব্যবহার করে শত্রুর সাথে মারামারি করতে গেমাররা অনেক মজা পাবে । নিয়ন পাওয়ার অনেকটা আধুনিক সায়েন্স ফিকশন অস্ত্রের মতো । যা দিয়ে ডালসিন শত্রুর উপর হামলাসহ আরো অনেক কিছু করতে পারবে ।
    এবার গেমসের ঘটনায় চলে আসি ।

    ঘটনা

    গেমসে দেখা যাবে , DUP বা ডুপ নামে একটি টিম আছে । টিমটি পুলিশের তত্ত্বাবধানে পরিচালিত । তাদের কাজ কনডিটদের মারা । কনডিট বলতে সুপার পাওয়ার অধিকারী লোকজনদের বুঝায় ।
    ইনফেমাসের আগের দুইটি গেমসের কনডিট ছিলো কোল ম্যাকগ্রাথ । কিন্তু ইনফেমাস টু তে কোল জন হোয়াইট নামক একজন দানবকে মারার জন্য একটি বিশেষ একটি অস্ত্র ব্যবহার করে । যা আর এফ আই নামে পরিচিত । তার ফলে পৃথিবীর সব কনডিটদের মৃত্যু হয় । ফলে ইনফেমাস ওয়ান এবং টু গেমসের প্রধান চরিত্র কোল ম্যাকগ্রাথ মারা যায় । ইনফেমাস সেকেন্ড সনের ঘটনার শুরু হয় তার ৭ বছর পর । ২৪ বছর বয়সী সাধারণ যুবক ডালসিন হঠাৎ নিজের মধ্যে ব্যতিক্রম শক্তির অনুভব করে । ফলে DUP বা ডুপ নামে একটি টিম তার পিছনে লাগে । ফলে তাকে তাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে হয় ।
    আরেকটি কথা , গেমসটি ওয়াশিংটনের স্যাটেলটে শুরু হয় । গেমসের মূল চরিত্র একজন কনডিট হওয়ার পূর্বে একজন সাধারণ দেয়াল চিত্র শিল্পী ছিলো । তার প্রধান কর্ম ছিলো দেয়ালে ছবি আকাঁ । একদিন সে একটি বাস দুর্ঘটনায় থেকে একজন ব্যক্তিকে বাঁচায় । তারপর ঘটনাক্রমে সে একজন কনডিটের সাথে পরিচিত হয় । তার সাহায্যে সে একজন কনডিট হয়ে উঠে । । কিন্তু তার বড় ভাই রেগ একজন পুলিশ অফিসার । তারপরও সে সিদ্ধান্ত নেয় যে , সে ডুপের বিরুদ্ধে লড়বে ।














    ফেসবুকে গেমস ওয়ার্ল্ডকে সমর্থন করুন । https://www.facebook.com/games.world.bangladesh

    Comments 1 Comment
    1. slayer420's Avatar
      slayer420 -
      heard the release time is going to change? any information on that?
Page generated in 0.34325 seconds with 64 queries.